আইপিএল থেকে প্রায় ছিটকে গেল সাকিবরা

ipl

কাল আমির তো আজ ফকির! কদিন আগেও পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে ছিল কেকেআর। সেই কলকাতাই বাদ পড়ার শঙ্কায়। রাজস্থান রয়্যালসের কাছে ৯ রানে হেরে ভাগ্যটা অন্য দলের হাতে সঁপে দিল সাকিব আল হাসানের দল। সেটা এতটাই জটিল অঙ্কের সমীকরণ, সাকিব খুব সম্ভবত দ্রুতই দেশে ফিরে আসছেন। আজ রোববার রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরু জিতে গেলেই বাদ বর্তমান চ্যাম্পিয়ন কলকাতা।
কলকাতার অবস্থা এখন এতটাই জটিল, পয়েন্ট টেবিলের চারে থেকেও তাদের বিদায় যতটা নিশ্চিত, পয়েন্ট টেবিলের পাঁচ আর ছয়ে থাকার পরও ততটাই নিশ্চিত মুম্বাই ইন্ডিয়ানস কিংবা সানরাইজ হায়দরাবাদের পরের রাউন্ডে ওঠা! সমীকরণ এতটাই জটিল, বেঙ্গালুরু বাদ পড়তে পারে, আবার খেলতে পারে প্রথম কোয়ালিফায়ার ম্যাচটিও! প্রথম কোয়ালিফায়ারের হেরে যাওয়া দলটি ফাইনালে ওঠার আরও একটা সুযোগ পায়। ফলে জায়গাটি এতটাই গুরুত্বপূর্ণ।
আজ রোববার হায়দরাবাদ-মুম্বাই ম্যাচে যে জিতবে, সেই উঠে যাবে পরের রাউন্ডে। কলকাতা তাকিয়ে থাকবে দিনের প্রথম ম্যাচটির দিকে। বেঙ্গালুরুকে দিল্লি ডেয়ারডেভিলস হারিয়ে দিলে একটা সুযোগ আছে তাদের। তবে বেঙ্গালুরুর শুধু হারলেই চলবে না, হারতে হবে বাজেভাবে।
এই মুহূর্তে ১৮ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে আছে চেন্নাই সুপার কিংস। কলকাতাকে হারিয়ে দুইয়ে উঠে গেছে রাজস্থান (১৬ পয়েন্ট)। মুম্বাই-হায়দরাবাদ ম্যাচে যারা জিতবে, তাদের পয়েন্টও হবে ১৬। গ্রুপ পর্বের সবগুলো ম্যাচ খেলে কলকাতার পয়েন্ট ১৫। বেঙ্গালুরুরও তা-ই। ফলে বেঙ্গালুরু জিতলে ১৭ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের দ্বিতীয় দল হিসেবে শীর্ষে থাকা চেন্নাইয়ের সঙ্গে প্রথম কোয়ালিফায়ার খেলার সুযোগ পাবে। এলিমেনেটর ম্যাচটিতে মুখোমুখি হবে রাজস্থান আর দিনের দ্বিতীয় ম্যাচের বিজয়ী দল। বাদ কলকাতা।
বেঙ্গালুরু হেরে গেলে কলকাতা আর তাদের পয়েন্ট হবে সমান। তখন দেখা হবে দুই দলের জয় সংখ্যা। সেখানেও দুই দলের জয় সংখ্যা সমানই (৭টি) হবে। তখন দেখা হবে নেট রানরেট। তাতে বেঙ্গালুরু ‍(+১.০৩৭) অনেক সুবিধাজনক অবস্থায় আছে কলকাতার (‍+০.২৫৩) চেয়ে। বেঙ্গালুরুর খুব বাজে একটি হারই টিকিয়ে রাখতে পারে কলকাতাকে।
গত দুটো ম্যাচে একদম জয়ের প্রান্তে গিয়েও হেরে যাওয়ায় এই সর্বনাশ হয়েছে। মুম্বাইয়ের কাছে ৫ রানে হেরে যাওয়ার পর আজকের এই পরাজয়। সাকিবের সামনে সুযোগ ছিল কলকাতার নায়ক হয়ে যাওয়ার। শেষ ওভারে দরকার ছিল ১৬ রান। টি-টোয়েন্টিতে শেষ ওভারে ১৬ অনেকবারই উঠেছে। ১৯তম ওভারেই কলকাতা ২০ রান তুলেছিল, সেটা অবশ্য উমেশ যাদবের সৌজন্যে। কিন্তু শেষ ওভারের প্রথম বলে সাকিব আউট হয়ে ফিরলেন ১১ বলে ১৩ করে। আগের ম্যাচে আইপিএলে ফিরেই দুর্দান্ত বল করেছিলেন। আজ ৪ ওভারে ৩৬ রান দিয়ে উইকেটশূন্য।
শেন ওয়াটসনের ৯টি চার ও ৫ ছক্কায় ৫৯ বলে খেলা ১০৪ রানের সৌজন্যে ৬ উইকেটে ১৯৯ তুলেছিল রাজস্থান। ইউসুফ পাঠানের ৪৪, আন্দ্রে রাসেলের ৩৭, উমেশ যাদবের ১১ বলে ২৪ রানের পরেও ৯ উইকেটে ১৯০ তুলে থেমে যায় কলকাতা।
সাকিবের দিনটা ভালো যায়নি, কলকাতারও।