আর্থিক প্রতিষ্ঠানের অনিয়মে কঠোর ব্যবস্থার হুঁশিয়ারি

অ-ব্যাংক আর্থিক প্রতিষ্ঠানের পরিচালকেরা বেনামে ঋণ সৃষ্টি করে বিপুল অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছেন। বাংলাদেশ ব্যাংক হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেছে, তদন্তে অনিয়ম ধরা পড়লে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
কেন্দ্রীয় ব্যাংকের গভর্নর আতিউর রহমান গতকাল মঙ্গলবার ব্যাংকবহির্ভূত আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রধান নির্বাহীদের সঙ্গে অনুষ্ঠিত বৈঠকে এই হুঁশিয়ারি দেন।
বড় ধরনের অনিয়মের দায়ে সম্প্রতি একটি প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান, আরও কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের কিছু পরিচালক এবং একটি বহিঃ নিরীক্ষক ফার্মকে বহিষ্কার করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক।
বৈঠক শেষে ডেপুটি গভর্নর এস কে সুর চৌধুরী সাংবাদিকদের বলেন, আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোতে গুরুতর আর্থিক অনিয়ম হয়েছে। আইন অনুসারে আমানতকারীর আমানত ঝুঁকিমুক্ত রাখতে কেন্দ্রীয় ব্যাংক কঠোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে। প্রতিষ্ঠানগুলোকে নিজেদের স্বার্থেই অনিয়ম বন্ধ করতে হবে।
বাংলাদেশ লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স কোম্পানিজ অ্যাসোসিয়েশনের চেয়ারম্যান আসাদ খান বলেন, বেনামি প্রতিষ্ঠানের নামে ঋণ বন্ধ করতে প্রধান নির্বাহীদের সুরক্ষার প্রয়োজন। ব্যাংকগুলো থেকে যেমন কেন্দ্রীয় ব্যাংকের অনুমতি ছাড়া প্রধান নির্বাহীকে অপসারণ করা যায় না, আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোতেও অনুরূপ বিধান থাকা দরকার।
সূত্র জানায়, বৈঠকে আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোতে সংঘটিত অনিয়ম ও পরিচালকদের বিধিবহির্ভূত ঋণ নেওয়ার তথ্য তুলে ধরা হয়। বলা হয়, একটি আর্থিক প্রতিষ্ঠানের কয়েকজন পরিচালক মিলে বিভিন্ন বেনামি প্রতিষ্ঠানে ৩০ শতাংশ ঋণ বিতরণ করে আত্মসাৎ করা হয়েছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিদর্শনে কয়েকটি আর্থিক প্রতিষ্ঠানে এমন ঘটনা উদ্ঘাটিত হয়েছে।
বৈঠকে গভর্নর লিখিত বক্তব্যে বলেন, কয়েকটি আর্থিক প্রতিষ্ঠানের গুরুতর অনিয়মের বিষয়ে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা ও কঠোরভাবে সতর্ক করার পরও এখনো কোনো কোনো প্রতিষ্ঠান তথ্য গোপন করে নানা অনিয়ম করে যাচ্ছে। এ ধরনের কিছু অনিয়মের তদন্তকাজ এখন প্রক্রিয়াধীন।