আলাদা জোট গঠনে তৎপর পাঁচটি দল

আওয়ামী লীগ ও বিএনপির নেতৃত্বাধীন দুই জোটের বাইরে রাজনীতিতে একটি নতুন মেরুকরণের লক্ষ্য নিয়ে জোটবদ্ধ হওয়ার চেষ্টা করছে প্রগতিশীল ধারার আলোচিত ছোট কয়েকটি দল। এর মধ্যে আছে এ কিউ এম বদরুদ্দোজা চৌধুরীর নেতৃত্বাধীন বিকল্পধারা বাংলাদেশ, ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বাধীন গণফোরাম, আবদুল কাদের সিদ্দিকীর কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ, মাহমুদুর রহমান মান্নার নেতৃত্বাধীন নাগরিক ঐক্য এবং আ স ম আবদুর রবের জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জেএসডি)।

সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্র জানিয়েছে, এই জোট গঠনের ব্যাপারে অন্যতম প্রধান উদ্যোক্তা সাবেক রাষ্ট্রপতি বদরুদ্দোজা চৌধুরী সবচেয়ে সক্রিয়। তিনি সম্ভাব্য এই জোটে আরও কয়েকটি দলকে অন্তর্ভুক্ত করার উদ্যোগ নিয়েছেন। এরই মধ্যে বদরুদ্দোজা চৌধুরী, ড. কামাল হোসেন, কাদের সিদ্দিকী, আ স ম রব ও মাহমুদুর রহমান জাতীয় ঐক্যের ডাক দিয়ে ঢাকায় ও ঢাকার বাইরে যৌথভাবে একাধিক সভা-সমাবেশও করেছেন।

জানতে চাইলে নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান প্রথম আলোকে বলেন, ‘জাতীয় স্বার্থে আমরা একটা উদ্যোগ নিয়েছি। দুই-তিনটা মিটিং করেছি। তবে এই উদ্যোগ জমাট বেঁধেছে—এ কথা এখনই বলা যাবে না।’

রাজনৈতিক চিন্তাধারাসহ কিছু বিষয়ে মতের অমিল থাকলেও নির্বাচনকালীন নির্দলীয় সরকারের বিষয়ে পাঁচটি দলই একমত। এসব দলের নেতারা মনে করেন, রাজনীতিতে যে সংকট তৈরি হয়েছে, এর সমাধানে নির্দলীয় সরকারের অধীন আগামী সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠানই একমাত্র পথ।

দলগুলোর বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, নির্বাচনকালীন সরকার নিয়ে যদি চলমান সংকটের মীমাংসা হয় এবং সব দল নির্বাচনে অংশ নেয়, তাহলে প্রধান বিরোধী দল বিএনপির সঙ্গে দূরতম সম্পর্ক বজায় রাখতে পারে সম্ভাব্য এই জোট। এর মধ্যে নির্বাচনকালীন নির্দলীয় সরকারের প্রশ্নে আন্দোলনে বিএনপির নেতৃত্বাধীন জোটের সঙ্গে যুগপৎ আন্দোলনের ব্যাপারে আগ্রহ আছে বিকল্পধারা, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ ও জেএসডির। বিএনপির সঙ্গে জামায়াতে ইসলামী থাকায় ১৮-দলীয় জোটের সঙ্গে সরাসরি যুক্ত হতে চায় না জেএসডি ও কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ। তবে জোটগত ঐক্যে তাদের আপত্তি নেই। কিন্তু গণফোরাম ও নাগরিক ঐক্য কোনোভাবেই বিএনপি-জামায়াত জোটের সঙ্গে যুক্ত হতে রাজি নয়।

এই অবস্থায় ১৮-দলীয় জোটের সঙ্গে যুগপৎ আন্দোলনে যাওয়ার ক্ষেত্রে বিএনপিকে কিছু শর্ত দিতে চায় বিকল্পধারা। এর মধ্যে খালেদা জিয়া ক্ষমতায় গেলে নতুনধারার যে সরকার গঠনের ঘোষণা দিয়েছেন, তার রূপরেখা জনসমক্ষে প্রকাশ এবং ক্ষমতায় গেলে দুর্নীতি করবেন না বলে মন্ত্রী-সাংসদদের যাঁর যাঁর ধর্মবিশ্বাস অনুসারে শপথ নিতে বলা হবে।

বিকল্পধারার সভাপতি বদরুদ্দোজা চৌধুরী প্রথম আলোকে বলেন, বিকল্পধারা, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ ও জেএসডি ইতিমধ্যে ঐক্যবদ্ধ হয়েছে। বিরোধী দলের জাতীয় ঐক্যই পারে দেশকে বিপর্যয়ের হাত থেকে রক্ষা করতে।

দলগুলোর মধ্যে কিছু বিষয়ে চিন্তার অমিল থাকার কথা স্বীকার করে বদরুদ্দোজা চৌধুরী বলেন, ‘এর পরও আমরা জাতীয় স্বার্থে মৌলিক বিষয়ে ঐকমত্যে পৌঁছার চেষ্টা করছি।’ তিনি উদাহরণ দিয়ে বলেন, ‘এরশাদের সঙ্গে জোট করতে আমাদের এ কয়টি দলের কেউ মৌলিকভাবে আগ্রহী নন। কিন্তু দেশ যদি বিপর্যয়মূলক পরিস্থিতিতে পড়ে, তখন এরশাদের সঙ্গেও যাব।’