না ফেরার দেশে চলে গেলেন বাংলার নবাব

বাংলা বিহার উড়িষ্যার নবাব সিরাজ-উদ-দৌলা খ্যাত এক সময়ের জনপ্রিয় বিশিষ্ট চলচ্চিত্র অভিনেতা আনোয়ার হোসেন সবাইকে কাঁদিয়ে চলে গেলেন না ফেরার দেশে (ইন্না লিল্লাহি………রাজিউন)। তার বয়স হয়েছিলো ৮২ বছর।

গতকাল বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ১টা ৩০ মিনিটে রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। অর্ধ শতকেরও বেশি সময় বাংলা চলচ্চিত্রে সরব পদচারণার ছিলো এই বাংলার নবাবের।

আনোয়ার হোসেনের স্ত্রী নাসিমা আনোয়ার জানান, গত তিন সপ্তাহ ধরে তিনি (আনোয়ার) স্কয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। গতকাল সন্ধ্যা থেকে তাঁর অবস্থার অবনতি হতে থাকে। রাত ১টা ৩০ মিনিটে কর্তব্যরত চিকিতৎসকেরা তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন।

বিভিন্ন প্যাথলজিক্যাল পরীক্ষায় আনোয়ার হোসেনের পিত্তথলীতে পাথর থাকার বিষয়টি সন্দেহ করছিলেন তার তত্ত্বাবধানকারী বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা। তারা বলছিলেন, অস্ত্রোপচারের মতো শারীরিক অবস্থা না থাকায় এভাবেই থাকতে হবে তাকে।

এর আগে বৃহস্পতিবার বিকালে আনোয়ার হোসেনের তার অবস্থার খোঁজ নিতে স্কয়ার হাসপাতালে যান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এ সময় তিনি তার পরিবারের সদস্যদের ১০ লাখ টাকা অনুদানও দেন।

আনোয়ার হোসেনের জন্ম ১৯৩১ সালে ময়মনসিংহে।১৯৫০ সালে জামালপুর সরকারি স্কুল থেকে এসএসসি এবং পরে আনন্দমোহন কলেজ থেকে এইচএসসি পাশ করেন।

১৯৫৮ সালে ‘তোমার আমার চলচ্চিত্রের মাধ্যমে চলচ্চিত্র জগতে পা রাখেন তিনি।

২০১০ সালে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে আজীবন সম্মাননা পান তিনি।

তার জনপ্রিয় চলচ্চিত্রগুলোর মধ্যে রয়েছে কাঁচের দেয়াল (১৯৬৩), বন্ধন (১৯৬৪), জীবন থেকে নেয়া (১৯৭০), রংবাজ (১৯৭৩), ধীরে বহে মেঘনা (১৯৭৩), রুপালী সৈকতে (১৯৭৭), নয়নমণি (১৯৭৭), নাগর দোলা (১৯৭৮), গোলাপী এখন ট্রেনে (১৯৭৮), সূর্য সংগ্রাম (১৯৭৯) ইত্যাদি। – See more at: http://www.alokitobangladesh.com/latest-news/2013/09/13/22193#sthash.jDg80ATF.dpuf