কুষ্টিয়ায় জনসভায় প্রধানমন্ত্রী

বিএনপি এলে জঙ্গি দুর্নীতি ফিরবে

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশের উন্নয়ন অব্যাহত রাখতে আবারও আওয়ামী লীগকে নির্বাচিত করতে জনগণের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলেছেন, বিএনপি যদি ক্ষমতায় আসে, তাহলে দেশে আবার সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ ও দুর্নীতি ফিরে আসবে।
গতকাল শনিবার বিকেলে কুষ্টিয়া সরকারি কলেজ মাঠে এক জনসভায় প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিএনপি ক্ষমতায় এলে বাংলাদেশ আবার জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাসবাদ ও দুর্নীতিগ্রস্ত দেশে পরিণত হবে এবং সব উন্নয়নকাজ বন্ধ হয়ে যাবে। তিনি বলেন, ‘বিএনপি নেত্রী মিথ্যা বলায় পারদর্শী, যাকে বলে মিথ্যা বলায় ওস্তাদ।’
কুষ্টিয়া জেলা আওয়ামী লীগ এ জনসভার আয়োজন করে। জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জুলফিকার আলীর সভাপতিত্বে জনসভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তৃতা করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী দীপু মনি, তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু, স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শামসুল হক, আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ, খুলনা বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক বি এম মোজাম্মেল হক প্রমুখ।
প্রধানমন্ত্রীর ১৮ মিনিটের বক্তৃতায় বেশির ভাগ জুড়েই ছিল বিরোধীদলীয় নেত্রী ও বিএনপি-জামায়াতের সমালোচনা। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকে সন্ত্রাসের রাজত্ব কুষ্টিয়ায় মানুষ শান্তিতে বসবাস করছে। এ এলাকার ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে। কুষ্টিয়ার ইতিহাসে এত উন্নয়ন অতীতে হয়নি।
শেখ হাসিনা বলেন, ‘বিরোধীদলীয় নেত্রী জরিমানা দিয়ে কালোটাকা সাদা করেছেন। আর দুই ছেলে কোটি কোটি টাকা বিদেশ পাচার করেছে।’ তিনি বলেন, ‘হত্যা, লুটপাট ও দুর্নীতি হচ্ছে বিএনপির চরিত্র। খাম্বা লি. ও ড্যান্ডি ডায়িংয়ের নামে খালেদা জিয়ার দুই ছেলে রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংক থেকে ৯৮০ কোটি টাকা লুট করেছে।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিদ্যুতের বদলে বিএনপি জনগণকে কেবল খাম্বা দিয়েছে। আর আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এসে বিদ্যুৎ উৎপাদন বাড়িয়ে নয় হাজার মেগাওয়াট করেছে।

শেখ হাসিনা প্রতিশ্রুতি দিয়ে বলেন, ‘শিক্ষার মান বৃদ্ধি করা হয়েছে। সরকার আপনাদের ছেলেমেয়েদের লেখাপড়ার দায়িত্ব নিয়েছে। আগামীতে আপনারা নৌকায় ভোট দিয়ে আওয়ামী লীগকে সরকার গঠন করার সুযোগ দিলে প্রত্যেক উপজেলায় একটি করে উচ্চবিদ্যালয় ও মহাবিদ্যালয় সরকারি করা হবে।’

বক্তব্যের শেষের দিকে শেখ হাসিনা জেলার উন্নয়ন অব্যাহত রাখতে আগামী নির্বাচনেও সবাইকে নৌকায় ভোট দেওয়ার জন্য হাত তুলে ওয়াদা করান।

এর আগে সকালে ভারত থেকে আমদানি করা বিদ্যুৎ জাতীয় গ্রিডে ও বাগেরহাটের রামপালে তাপবিদ্যুৎকেন্দ্র এবং ভেড়ামারায় ৩৬০ মেগাওয়াট গ্যাসভিত্তিক আরেকটি বিদ্যুৎকেন্দ্রের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন তিনি। এ ছাড়া জনসভায় যোগ দেওয়ার আগে তিনি মঞ্চের পাশে অস্থায়ীভাবে তৈরি করা ২১টি উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন ও ভিত্তিপ্রস্তর ফলক উন্মোচন করেন।

ভারতের বিদ্যুৎ ও রামপাল কেন্দ্রের উদ্বোধন