মোকাবিলায় মাঠেই থাকবে আ. লীগ

বিএনপির আন্দোলন মোকা-বিলার প্রস্তুতি চলছে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগে। ঈদের পর থেকেই ধারাবাহিক কর্মসূচি নিয়ে রাজপথে সরব থাকবে দলটি। ঢাকাসহ সারা দেশে ওয়ার্ড, ইউনিয়ন, থানায়ও একযোগে মিছিল-সমাবেশ করার প্রস্তুতি নিচ্ছে ক্ষমতাসীন দল। তবে আওয়ামী লীগের টার্গেট মহানগরগুলো নিয়ন্ত্রণে রাখা। দলের একাধিক নীতিনির্ধারণী নেতা এ তথ্য জানান।
দলীয় সূত্রে জানা গেছে, আগামী সোমবার আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সভা থেকে বিএনপির আন্দোলন কর্মসূচির বিকল্প কর্মসূচি ঠিক করা হবে। ঈদের পর দলের কারা কিভাবে মাঠে থাকবেন সে সম্পর্কে দিকনির্দেশনা দেওয়া হবে ওই সভা থেকে। দলের সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী ফোরামের সভায় সিদ্ধান্ত নিয়ে মূলত আটঘাট বেঁধে মাঠে নামবে আওয়ামী লীগ।
দলের একটি সূত্র জানায়, বিএনপি যেদিন কর্মসূচি দেবে, সেদিন পাল্টা কর্মসূচি দিয়ে মাঠে থাকার সিদ্ধান্ত রয়েছে আওয়ামী লীগের। আন্দোলনের নামে বিএনপিকে সংঘাত-সংঘর্ষ, জ্বালাও-পোড়াওয়ের কোনো সুযোগ দেবে না আওয়ামী লীগ। আন্দোলন প্রতিরোধে একদিকে রাজনৈতিক কর্মসূচি নিয়ে সরকারের পাশে থাকবে দল, অন্যদিকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে আন্দোলনকারীদের বিরুদ্ধে কড়া প্রতিরোধ গড়ে তুলতে কাজে লাগানো হবে। সূত্র জানায়, পরিস্থিতি এমনও হতে পারে, পাল্টাপাল্টি কর্মসূচি থাকলে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী সংঘাত-সংঘর্ষের আশঙ্কার কথা জানিয়ে উভয় পক্ষের কর্মসূচি নিষিদ্ধ করতে পারে।
সূত্র জানায়, বিএনপি চায় ঢাকায় অবস্থান নিতে। কিন্তু সরকার তাদের এ উদ্দেশ্য সফল হতে দেবে না। বিএনপির শরিকদের সঙ্গে আওয়ামী লীগের একটি মহলের যোগাযোগ চলছে বলে উল্লেখ করে সূত্রটি জানায়, এ উদ্যোগ সফল হলে বিএনপি কোনো কর্মসূচি নিয়ে মাঠে দাঁড়াতে পারবে না।
দলের সভাপতিমণ্ডলীর এক সদস্য নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, আওয়ামী লীগ সরকারেই থাকছে। বিএনপি যদি মনে করে, ইচ্ছা করলেই সব কিছু ওলটপালট করে দেবে, তা ভুল হবে।
নির্বাচনের পাশাপাশি আন্দোলন মোকাবিলার প্রস্তুতিও নেওয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য কাজী জাফর উল্যাহ। তিনি বলেন, ‘বিএনপিতেও নির্বাচনের প্রস্তুতি চলছে, আন্দোলনের নয়। বিএনপির অবস্থান সম্পর্কে নিশ্চিত হয়েই এ কথা বলছি।’
এরই মধ্যে বিএনপির মহাসমাবেশের দিন (২৫ অক্টোবর) পাল্টা সমাবেশ কর্মসূচি ঘোষণা করেছে ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগ। বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে গতকাল বৃহস্পতিবার মহানগর আওয়ামী লীগের এক বর্ধিত সভা থেকে এ কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়।
ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া গতকাল এ কর্মসূচি ঘোষণা করে বলেন, ‘ওরা (বিএনপি-জামায়াত) যে কর্মসূচি দেবে, আমরা তার পাল্টা কর্মসূচি গ্রহণ করব।’ তিনি বলেন, ঈদের পর ধারাবাহিকভাবে আরো কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে। বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে ২৫ অক্টোবর এ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে বলে জানান তিনি।
এদিকে বর্ধিত সভায় আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও কেন্দ্রীয় ১৪ দলের মুখপাত্র মোহাম্মদ নাসিম বলেন, আগামী ২৪ অক্টোবর দেশে ভয়াবহ বিপর্যয় আসার কোনো আশঙ্কা নেই। ওই দিন কিছুই হবে না। বিরোধী দল নির্বাচনে অংশ না নিলেও নির্বাচন হবে। আর যদি কোনো কারণে নির্বাচন না হয়, তাহলে সংবিধান মোতাবেক দেশ পরিচালিত হবে।
অন্যদিকে বিএনপির ২৪ অক্টোবরের আলটিমেটামের জবাবে আইন প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম বলেন, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী যেভাবে তৎপর রয়েছে, তাতে আগামী ২৪ অক্টোবর বিরোধী দলের নাশকতার আলটিমেটাম ভেস্তে যাবে।
সূত্র জানায়, ২৫ অক্টোবরের পর থেকে আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠনগুলোও কর্মসূচি নিয়ে মাঠে থাকবে। কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ এরই মধ্যে সহযোগী সংগঠনগুলোকে এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দিয়ে রেখেছে বলে দলের কেন্দ্রীয় নেতারা নিশ্চিত করেছেন।