সংসদে গ্রামীণ ব্যাংক বিল পাস

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কাছে আর্থিক হিসাব দেওয়ার বাধ্যবাধকতা রেখে গ্রামীণ ব্যাংক বিল, ২০১৩ গতকাল মঙ্গলবার সংসদে পাস হয়েছে। বিলে অনুমোদিত ও পরিশোধিত মূলধন বাড়ানোর কথা বলা হয়েছে।
অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বিলটি উত্থাপন করলে তা কণ্ঠভোটে পাস হয়। রাষ্ট্রপতির সইয়ের পর বিলটি আইনে পরিণত হবে। সে ক্ষেত্রে ১৯৮৩ সালের গ্রামীণ ব্যাংক অধ্যাদেশ রহিত হয়ে যাবে।
জাতীয় পার্টির সাংসদ মুজিবুল হক বিলটির ব্যাপারে জনমত যাচাই ও সংশোধনী প্রস্তাব দিলে তা কণ্ঠভোটে নাকচ হয়। তবে তার আগে অর্থমন্ত্রী ও সাংসদ মুজিবুল হকের পাল্টাপাল্টি বক্তব্যে কিছুক্ষণের জন্য সংসদ প্রাণবন্ত হয়ে ওঠে।
মুজিবুল হক বলেন, নির্বাচনের আগে এই বিল পাস হলে তা নিয়ে প্রশ্ন উঠবে। যেহেতু বিলটি নিয়ে দেশ-বিদেশে সমালোচনা আছে। সে জন্য বিলটি পাসের ব্যাপারে জনমত যাচাই করা দরকার। তিনি আরও বলেন, গ্রামীণ ব্যাংক গ্রাহকদের কাছ থেকে যে সুদ নেয়, সে জন্য আমরা সমালোচনা করি। তবে সেই সুদ মহাজনদের সুদের চেয়ে কম। ড. ইউনূস গ্রামীণ ব্যাংক প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে নারীদের স্বাধীন ও স্বাবলম্বী করার ক্ষেত্রে বিপ্লব সৃষ্টি করেছেন। তা ছাড়া এটি একটি অর্থবিল। তাই এটি পাসের আগে রাষ্ট্রপতির মত নেওয়া দরকার ছিল।
জবাবে অর্থমন্ত্রী মুহিত বলেন, এটি অর্থবিল। তবে এখানে কর বাড়ানো বা কমানোর কোনো সংশ্লিষ্টতা নেই বিধায় রাষ্ট্রপতির অনুমোদন নেওয়ার প্রয়োজন নেই। তিনি আরও বলেন, ‘ড. ইউনূস জ্ঞানী-গুণী মানুষ। তিনি আমাদের দেশের গর্ব। দেশের জন্য নোবেল এনেছেন। তাঁর এই সাফল্যের পেছনে সরকারের উদ্যোগ ছিল। সৌভাগ্যক্রমে আমারও কিছু ভূমিকা ছিল।’ অর্থমন্ত্রী বলেন, দেশে-বিদেশে এই বিলটি নিয়ে যাঁরা কথাবার্তা বলছেন, তাঁরা জানেন না এই বিলে কী আছে।
বিলে অনুমোদিত মূলধন ৩৫০ কোটি টাকা থেকে বাড়িয়ে এক হাজার কোটি এবং পরিশোধিত মূলধন ৫০ কোটি টাকা থেকে বাড়িয়ে ৩০০ কোটি টাকা করা হয়েছে। গ্রামীণ ব্যাংকের মালিকানায় সরকারের অংশীদার ২৫ শতাংশ বহাল রাখা হয়েছে। বাকি ৭৫ শতাংশ থাকছে গ্রামীণ ব্যাংকের শেয়ারহোল্ডারদের কাছে। সরকার সময় সময় পরিশোধিত শেয়ার মূলধন বাড়াতে পারবে।
বিলে বলা হয়েছে, ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সর্বোচ্চ ৬০ বছর পর্যন্ত চাকরিতে বহাল থাকবেন। ব্যাংকের পরিচালকদের মেয়াদ হবে তিন বছর। ব্যাংকের পরিচালনা বোর্ডে সরকারের নিয়োগ করা তিনজন এবং ঋণগ্রহীতা অংশীদারদের দ্বারা নির্বাচনে নয় ব্যক্তি পরিচালক হবেন। ব্যবস্থাপনা পরিচালক এই বোর্ডের পরিচালক হলেও তাঁর ভোটাধিকার থাকবে না।
এ ছাড়া গতকাল পায়রা বন্দর কর্তৃপক্ষ বিল ২০১৩, ভৌগোলিক নির্দেশক পণ্য (নিবন্ধন ও সুরক্ষা) বিল ২০১৩ ও এশিয়ান রিইনস্যুরেন্স করপোরেশন বিল ২০১৩ সংসদে পাস হয়। বিল তিনটি উত্থাপন করেন যথাক্রমে নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান, শিল্পমন্ত্রী দিলীপ বড়ুয়া ও অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত।