সব ছিল ‘স্বাভাবিক’!

doi
তিন সিটি করপোরেশন নির্বাচনে প্রায় ৩০টি ভোটকেন্দ্রে সাংবাদিকদের প্রবেশে বাধা ও নাজেহালের ঘটনার খবর গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে, এ ধরনের ‘রিপোর্ট’ পাওয়ার কথা খোদ প্রধান নির্বাচন কমিশনারও স্বীকার করেছেন; কিন্তু ভোটকেন্দ্রের দায়িত্বে থাকার প্রিজাইডিং কর্মকর্তারা তদন্ত কমিটির সামনে বলে গেলেন- সব ছিল ‘স্বাভাবিক’।

ইসির এই তদন্ত কমিটির আহ্বায়ক ঢাকার অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনারের (সার্বিক) কাছে রোববার প্রথম দফায় ৩০টি ভোটকেন্দ্রের প্রিজাইডিং কর্মকর্তারা বক্তব্য দেন।

অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার মোহা. আনিছুর রহমান ছাড়াও যুগ্ম পুলিশ কমিশনার (ক্রাইমস অ্যান্ড অপস) ও ইসি সচিবালয়ের নির্বাচন সমন্বয় শাখার উপ সচিব এ কমিটির সদস্য।

৩০ জন ভোটগ্রহণ কর্মকর্তার একজনও যে সাংবাদিকদের বাধা দেওয়ার ঘটনা স্বীকার করেননি,  তা নিশ্চিত করেছেন সংশ্লিষ্ট একজন।

প্রিজাইডিং কর্মকর্তারা মৌখিক ও লিখিতভাবে তদন্ত কমিটিকে জানিয়েছেন, কোনো কোনো কেন্দ্রে একাধিক সাংবাদিক প্রবেশ করেছেন। কয়েক মিনিট কেন্দ্রে ঘুরেছেনও। তবে ভোটকেন্দ্রের আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি ‘স্বাভাবিক’ ছিল। বাধা দেওয়া ও নাজেহালের কোনো ঘটনা ‘ঘটেনি’।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে হযরত শাহ আলী গার্লস স্কুল অ্যান্ড কলেজ কেন্দ্রের প্রিজাইডিং কর্মকর্তা কামাল উদ্দিন আহমেদ বলেন, “তদন্ত কমিটির কাছে আমরা বক্তব্য দিয়ে এসেছি। এখন সেখান থেকেই এ বিষয়ে জেনে নিতে পারেন।”

ভোটকেন্দ্রে বাধা ও নাজেহালের ঘটনা নিয়ে আর কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি এ ব্যাংক কর্মকর্তা।

এ বিষয়ে কথা বলার জন্য তদন্ত কমিটির আহ্বায়কের মোবাইল ফোনে কয়েক দফা যোগাযোগের চেষ্টা করলেও তা বন্ধ পাওয়া যায়।

তদন্ত কমিটির সদস্য ইসির উপ সচিব আব্দুল অদুদ বলেন, “সংশ্লিষ্ট ৩০ জন ভোটগ্রহণ কর্মকর্তার শুনানি হয়েছে। তাদের বক্তব্য আমরা পেয়েছি। পুলিশ সদস্যদের শুনানি হবে ২০ মে। এ মাসের শেষে ভুক্তভোগী সাংবাদিকদেরও বক্তব্য নেওয়া হবে।”

সবার বক্তব্য নিয়ে প্রয়োজনীয় সুপারিশসহ প্রতিবেদন কমিশন সচিবালয়ে উপস্থাপন করা হবে বলে জানান তিনি।

গত ২৮ এপ্রিল ঢাকা উত্তর, দক্ষিণ ও চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনে ভোট হয়। ভোটের পরে সাংবাদিকদের বাধার বিষয়ে ঢাকা ও চট্টগ্রামে দুটি তদন্ত কমিটি করে ইসি।

যে পাঁচটি বিষয়ে বক্তব্য নিয়েছে তদন্ত কমিটি

ভোটের দিন সংশ্লিষ্ট ভোটকেন্দ্