সালাহ উদ্দিনকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে মেঘালয় পুলিশ

 

salaবিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সালাহ উদ্দিন আহমদকে ভারতের মেঘালয় রাজ্যে পুলিশের বিশেষ শাখার (স্পেশাল ব্রাঞ্চ) দুজন কর্মকর্তা জিজ্ঞাসাবাদ করেছেন। এ ছাড়া সালাহ উদ্দিন আহমদের দুজন আত্মীয় প্রথমবারের মতো তাঁর সঙ্গে দেখা করেছেন। আজ বৃহস্পতিবার বিবিসি বাংলার খবরে এ কথা বলা হয়েছে।
নিখোঁজ হওয়ার দুই মাস পর গত মঙ্গলবার ভারতের মেঘালয়ের শিলংয়ে সালাহ উদ্দিন আহমদের খোঁজ মেলে। ওই দিন দুপুরে তাঁর স্ত্রী হাসিনা আহমদ জানান, শিলংয়ের হাসপাতাল থেকে তিনি স্বামীর ফোন পেয়েছেন। অন্যদিকে শিলং পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়, শিলং শহরের গলফ লিংক এলাকায় উদভ্রান্তের মতো ঘোরাফেরা করার সময় তাঁকে আটক করা হয়। সে দেশে অনুপ্রবেশের মামলায় তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।
সালাহ উদ্দিন আহমদ এখন মেঘালয়ের শিলং শহরের সিভিল হাসপাতালে পুলিশি পাহারায় আছেন। সুস্থ হলে আগামী সপ্তাহে তাঁকে আদালতে সোপর্দ করা হবে বলে সেখানকার পুলিশ কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।
বিবিসি বাংলার খবরে আজ বৃহস্পতিবার বলা হয়েছে, সালাহ উদ্দীন আহমদের দুজন আত্মীয় প্রথমবারের মতো আজ বিকেলে তাঁর সঙ্গে শিলং শহরের সিভিল হাসপাতালে দেখা করেন। আত্মীয়ের একজন নিজেকে আইয়ুব আলী পরিচয় দিয়ে জানান, তিনি কলকাতার বাসিন্দা এবং সালাহ উদ্দিন আহমদের দূর সম্পর্কের ভাই। অপরজনের নাম জানা যায়নি। হাসপাতালে সালাহ উদ্দিনের সঙ্গে দেখা করার পর তাঁরা সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন।

সালাহ উদ্দিন আহমদের সঙ্গে দেখা করার পর ওই দুই আত্মীয় সাংবাদিকদের জানান, সালাহ উদ্দিন জানিয়েছেন, তাঁকে চোখ বাঁধা অবস্থায় কয়েকবার গাড়ি বদল করে শিলং নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। শিলংয়ের পলোগ্রাউন্ডে তাঁকে চোখ বাঁধা অবস্থাতেই গাড়ি থেকে নামিয়ে দেওয়া হয়। চোখের বাঁধন খোলার পরও তিনি বুঝতে পারছিলেন না তিনি কোথায় আছেন। স্থানীয় লোকজনকে জিজ্ঞাসা করে তিনি জানতে পারেন যে তিনি শিলংয়ে আছেন।
এই দুজন সাংবাদিকদের আরও জানান, সালাহ উদ্দিন আহমদ নিজেই এরপর শিলং পুলিশের কাছে গিয়ে নিজের পরিচয় দেন। এর আগে গত মঙ্গলবার শিলং পুলিশের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছিল, স্থানীয় লোকজন সালাহ উদ্দিন আহমদকে উদভ্রান্তের মতো ঘুরতে দেখে থানায় খবর দেন। এরপর পুলিশ তাঁকে সেখান থেকে উদ্ধার করে মানসিক হাসপাতালে নিয়ে যায়।

এদিকে মেঘালয় রাজ্যে পুলিশের বিশেষ শাখার দুজন কর্মকর্তা আজ বিকেলে সালাহ উদ্দীন আহমদকে প্রায় দুঘণ্টা ধরে জিজ্ঞাসাবাদ করেছেন। কিন্তু জিজ্ঞাসাবাদে কী জানতে পেরেছেন, তাঁরা তা প্রকাশ করেননি।

সালাহ উদ্দিন আহমদের সঙ্গে দেখা করতে তাঁর পরিবারের সদস্যরা আজ বৃহস্পতিবার শিলং পৌঁছান। এদের একজনের নাম হুমায়ুন রশিদ। তিনি জানিয়েছেন, তিনি সালাহ উদ্দিন আহমদের কাজিন। সালাহ উদ্দিন আহমদের সঙ্গে তাঁদের দেখা করার অনুমতি দিয়েছিলেন শিলংয়ের পুলিশ সুপার (এসপি)। কিন্তু পরে সেই অনুমতি প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়। দেখা করতে না পেরে তাঁর ফিরে যান।
সালাহ উদ্দীন আহমদের সঙ্গে দেখা করতে বিএনপির সহদপ্তর সম্পাদক আবদুল লতিফ ও স্বপন নামের দুজন নেতাও শিলংয়ে পৌঁছেছেন বলে বিবিসি বাংলার খবরে বলা হয়েছে।