হটানোর গণতন্ত্র, ফাটানোর রাজনীতি…সোহরাব হাসান

বাংলাদেশে ৪২ বছর ধরে এক অভিনব গণতন্ত্র চলছে, যার সঙ্গে পৃথিবীর কোনো দেশের গণতান্ত্রিক কাঠামো, পদ্ধতি ও আচার-আচরণের কোনো মিল নেই। গণতন্ত্রের মূল কথা হলো, জনগণের প্রতিনিধি নির্বাচন বা বাছাইয়ের অবাধ স্বাধীনতা। গণতন্ত্র হলো জনগণের জন্য জনগণের দ্বারা জনগণের শাসন। আর বাংলাদেশের গণতন্ত্রের সংজ্ঞা হলো জনগণের দ্বারা ‘আমাদের’ জন্য ‘আমাদের’ শাসন।
বলার অপেক্ষা রাখে না যে বাংলাদেশের মহাবিজ্ঞ রাজনৈতিক নেতৃত্ব জনগণের প্রতিনিধি বাছাইয়ের পথটা দিনে দিনে কঠিন করে তুলেছেন। এখন নির্বাচনের কথা শুনলেই মানুষের মধ্যে আতঙ্ক দেখা দেয়।
স্বাধীনতার পর রাজনৈতিক নেতৃত্ব সংসদীয় গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে ‘সর্বোৎকৃষ্ট’ সংবিধান রচনা করলেন, তারপর সেই সংবিধান ঝেঁটিয়ে বিদায় করে একদলীয় শাসন কায়েম করা হলো, তারপর দুই দিগিবজয়ী সেনাপতি দেশবাসীকে সাচ্চা গণতন্ত্র উপহার দেওয়ার মহান ব্রত নিয়ে ক্ষমতায় এসে যা প্রতিষ্ঠা করলেন, তার নাম একনায়কতন্ত্র। নব্বইয়ে গণ-আন্দোলনের মাধ্যমে রাজনৈতিক নেতৃত্ব স্বৈরশাসককে বিতাড়িত করে ফের সংসদীয় ব্যবস্থায় ফিরে এলেও নিজেরা ‘গণতান্ত্রিক’ হতে পারেননি। সরকারি বা বিরোধী দল কেউই গণতন্ত্রের মৌল নীতি মানেনি, এখনো মানতে চাইছে না। তারা জয়ী হওয়ার জন্য প্রতিবার খেলার নিয়ম পাল্টে ফেলছে। যে যার সুবিধামতো নিয়ম করছে, ভাঙছে।
আমাদের নেতা-নেত্রীরা কথায় কথায় নাগরিক সমাজের ব্যর্থতার সমালোচনা করেন, তাদের ‘পরামর্শ’কে তুচ্ছতাচ্ছিল্য করেন, গণমাধ্যমকে তুলাধোনা করেন, কিন্তু তাঁরা যে তাঁদের সুনির্মিত গণতান্ত্রিক ব্যবস্থায় নির্বাচনটি কীভাবে করবেন, সেই বিষয়টি মীমাংসা করতে পারেননি, সে কথা একবারও স্বীকার করেন না। দুই দশক ধরে তাঁরা একই স্থানে মার্কটাইম করে চলেছেন। ভোট চুরি বন্ধ করতে তাঁরা একবার তত্ত্বাবধায়কব্যবস্থা চালু করেন, আরেকবার সেই ব্যবস্থাকেই ভোট চুরির মোক্ষম হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করেন। তাঁরা একবার আন্দোলন করে তত্ত্বাবধায়কব্যবস্থা গড়েন, আরেকবার সুযোগ পেয়ে সেই ব্যবস্থাকে বুড়িগঙ্গায় ফেলে দেন। এই ভাঙা-গড়ার খেলায় বাংলাদেশের গণতান্ত্রিক ব্যবস্থাটিকেই তাঁরা প্রায় অকার্যকর ও অপাঙেক্তয় করে ফেলেছেন।
প্রতিটি রাজনৈতিক দল নিজেকে দেশের ও জনগণের অতন্দ্রপ্রহরী ভাবে। তাদের দাবি ‘আমরা জয়ী হলেই গণতন্ত্র রক্ষা পাবে এবং অন্যরা জয়ী হলে গণতন্ত্র ধ্বংস হয়ে যাবে।’ আদতে গণতন্ত্রের নামে তাঁরা দেশ ধ্বংসের মহড়াই দিয়ে চলেছেন। গণতন্ত্রের সার কথা হলো সমঝোতা, আলোচনা এবং সংখ্যাগরিষ্ঠের মতামতের ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত গ্রহণ। কিন্তু বাংলাদেশের মহা-মহামহিম রাজনৈতিক নেতৃত্ব কখনোই এসব আমলে নেন না। তাঁরা যুক্তির চেয়ে পেশিশক্তিকে অধিক গুরুত্ব দেন। তাঁরা বরাবরই গায়ের জোরে একে অপরের ওপর সিদ্ধান্ত চাপিয়ে দিয়ে আত্মপ্রসাদ লাভ করেন। তাঁরা অপরের ধ্বংসের মধ্য দিয়েই নিজের বিজয় দেখতে ভালোবাসেন। গণতন্ত্রে যেখানে সবাই মিলে দেশ শাসন এবং জনগণের কল্যাণে কাজ করার কথা, সেখানে স্বাধীনতার পর থেকেই আমাদের রাজনীতিকেরা ‘শত্রুতত্ত্ব’ ও ‘দেশবিক্রি তত্ত্ব’ প্রচারে ব্যস্ত রয়েছেন। গণতন্ত্রে সবার জন্য আইন সমান হবে। কিন্তু বাংলাদেশের গণতন্ত্রের সিপাহশালারেরা বরাবরই উল্টো নিয়মে চলছেন। তাঁরা বৃহত্তর জনগণের স্বার্থে আইন করেন না। আইন করেন ব্যক্তি ও গোষ্ঠী স্বার্থে। গণতন্ত্রে ক্ষমতায় থাকতে একরকম আইন আর বিরোধী দলে থাকতে আরেক রকম আইন, সেটি হতে পারে না। একবার রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে মামলা দায়ের, আরেকবার সেই মামলা প্রত্যাহারের নামে চোর, ডাকাত ও খুনিদের জেলখানা থেকে বের করে আনা চলতে পারে না। অথচ দুই দলই পালা করে সেই কাজটি করে আসছে।
বিরোধী দলের নেতারা বলতে শুরু করেছেন, ২৫ অক্টোবরের পর আওয়ামী লীগের নেতারা পালিয়েও পার পাবেন না। আগে সরকার হটাও, তার পর নির্বাচন। ২৫ অক্টোবরের পর দেশ চলবে খালেদা জিয়ার কথায়। বিএনপির এক নেতা তো ভবিষ্যদ্বাণী করেছেন, ‘নভেম্বরের পর দেশে আওয়ামী লীগ সরকার বলে কিছু থাকবে না।’ এমনকি অলৌকিক জাদু তাঁদের হাতে আছে যে নির্বাচন ছাড়াই ২৫ অক্টোবরের পর তাঁরা দেশ পরিচালনার দায়িত্ব পেয়ে যাবেন। আবার ক্ষমতাসীন দলের কোনো কোনো নেতা এই বলে হুংকার ছাড়ছেন যে, নির্বাচনে কে এলো না এলো, তাতে কিছু যায় আসে না। সংবিধান অনুযায়ী নির্ধারিত তারিখের মধ্যেই নির্বাচন হবে। ক্ষমতায় থাকতে বিএনপির নেতারাও এ রকম হুংকার ছেড়েছিলেন। ২০০৭ সালে তাঁরা নির্বাচন করতে পারেননি। ২০১৪ সালে আওয়ামী লীগ পারবে কি? আর একতরফা নির্বাচন হলেও তাতে গণতন্ত্র বাঁচবে না।
ক্ষমতাসীন ও বিরোধী দলকে বুঝতে হবে, গণতান্ত্রিক ব্যবস্থায় কেউ কারও শত্রু নয়। নিজ নিজ অবস্থানে থেকে তারা নিজ নিজ কর্মসূচি জনগণের সামনে তুলে ধরবেন। পরিকল্পনার কথা জানাবেন। জনগণ যার কর্মসূচি পছন্দ করবে, তাকেই ভোট দেবে, নির্বাচিত করবে। কিন্তু আমাদের সদাশয় সরকারি দল ও অতি মান্যবর বিরোধী দল জনগণের ওপর মোটেই ভরসা রাখতে পারছে না। সরকারি দল চাইছে না, বিরোধী দল নির্বাচনে এসে তাদের বাড়া ভাতে ছাই দিক। আবার বিরোধী দল পারলে এখনই একটি বিজয় মিছিল বের করে। কিন্তু সেই মিছিলে যুদ্ধাপরাধের দায়ে দণ্ডিত ব্যক্তিরা থাকবেন কি না, সে কথা স্পষ্ট করে বলছেন না। জনগণের ভয় সেখানেই।
গণণতান্ত্রিক ব্যবস্থায় জাতীয় গুরুত্বপূর্ণ সব বিষয়েই জাতীয় সংসদে আলোচনা হওয়ার কথা। কিন্তু বিরোধী দল ধনুর্ভঙ্গ পণ করেছে, তারা আওয়ামী লীগের সংসদে আর মুখ দেখাবে না। কথা বলবে না। সম্প্রতি সরকার বেশ কিছু জাতীয় গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নিয়েছে। যেমন, সরকার তথ্যপ্রযুক্তি ও যোগাযোগ আইন পাস, রামপালে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র ও রূপপুরে পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের শিলান্যাস। এসবের পক্ষে-বিপক্ষে বিভিন্ন মহলে আলোচনা হলেও বিরোধী দল সংসদে গিয়ে আলোচনার দাবি জানানোরও প্রয়োজনবোধ করছে না। তাঁরা মনে করেন, আওয়ামী লীগকে ক্ষমতা থেকে হটাতে পারলেই সব সমস্যার সমাধান হবে। যেমন একদা আওয়ামী লীগও মনে করত, বিএনপি-জামায়াতকে বিদায় দিতে পারলেই কেল্লা ফতে। আমাদের দেশদরদি দল ও জননন্দিত নেতা-নেত্রীরা কখনোই নিজেদের বিরোধী দলে ভাবতে পারেন না। তাই দেশের গণতন্ত্রের মূল সমস্যা তত্ত্বাবধায়ক থাকা না-থাকা নয়, মূল সমস্যা হলো একে অপরকে সহ্য করতে না পারা। তাঁরা নিজেদের দেশপ্রেমিক ভাবেন, আর অন্যদের ঘোরতর শত্রু।
এই শত্রু শত্রু খেলায় আর যা-ই হোক গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত হবে না।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সম্প্রতি এক সমাবেশে বলেছেন, একমাত্র তাঁর সরকারই ১৯৯৬ সালে শান্তিপূর্ণভাবে ক্ষমতা হস্তান্তর করেছে। বাংলাদেশে আর কখনোই ক্ষমতা হস্তান্তর শান্তিপূর্ণ হয়নি। তাঁর এই কথা যেমন অসত্য নয়, তেমনি অসত্য নয় সেই হস্তান্তর-প্রক্রিয়া নিয়ে নানা টালবাহানাও। তিনি মদিনায় বসে তিন মাস আগে ক্ষমতা ছেড়ে দেওয়ার ঘোষণা দিয়েও পরে সেই কথা ফিরিয়ে নিয়েছেন। যেমন সংসদ ভেঙে দিয়ে নির্বাচন হওয়ার কথা বলে এখন সংসদ রেখেই নির্বাচন করার কথা বলছেন। লেভেল প্লেয়িং ফিল্ডের অভূতপূর্ব নমুনা।
রাজনৈতিক দলগুলো যখন তীব্র রেষারেষিতে লিপ্ত, একে অপরকে দেখে নেওয়ার নিরন্তর হুমকি দিয়ে আসছে, তখন কুচক্রী মহল ঘোলা পানিতে মাছ শিকারের চেষ্টা করবে, সেটাই স্বাভাবিক। নেতা-নেত্রীদের তীব্র বাক্যবাণ যখন জাতির হূৎপিণ্ডকে রক্তাক্ত করছে, তখন কুচক্রীরা সত্যিকার রণক্ষেত্রে নেমে পড়েছে। গত সোমবার চট্টগ্রামের লালখান বাজারের জামেয়াতুল উলুম আল ইসলামিয়া মাদ্রাসার ছাত্রাবাসে বোমা বিস্ফোরণের ঘটনাটি বিচ্ছিন্ন কিংবা নিছক দুর্ঘটনা নয়। সেখানে বোমা তৈরির সরঞ্জামের পাশাপাশি কিছু তাজা বোমাও পাওয়া গেছে। দীনের বাণী শেখানোর জন্য যে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান গড়ে তোলা হয়েছে, সেই প্রতিষ্ঠানের ছাত্রদের কেন বোমা বানানো শেখানো হচ্ছে? মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মুফতি ইজাহারুল ইসলাম চৌধুরীই বা কেন গা ঢাকা দিলেন? গতকাল প্রথম আলোতে ধ্বংসস্তূপের যে ছবি ছাপা হয়েছে, তা কোনোভাবেই ল্যাপটপের বিস্ফোরণের নয়। দুর্ঘটনায় আহত শিক্ষার্থীদের মধ্যে একজন মারা গেছেন। তাহলে কি বাংলাদেশেও পাকিস্তান ও আফগানিস্তানের মতো আত্মঘাতী তালিবানি প্রক্রিয়া শুরু হয়ে গেল? এ ঘটনা আমাদের ১৯৯৯-২০০৬ পর্বের বোমাবাজি, গ্রেনেডবাজির কথাই মনে করিয়ে দেয়।
বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এক সমাবেশে বলেছেন, ‘মনোনয়নের চিন্তা পরে করা যাবে। এখন আন্দোলনের মাধ্যমে সরকার হটাতে হবে। ওদিকে সরকারি দলের এক নেতা বলেছেন, বিএনপির প্রতিরোধের বিরুদ্ধে তারাও পাল্টা প্রতিরোধ গড়ে তুলবেন। এই যে সারা দেশে হটানো-থামানো ও প্রতিহত করার গণতন্ত্রের মহড়া নেতারা দিয়ে যাচ্ছেন, তাতে আমরা সাধারণ মানুষ ভীত, শঙ্কিত ও সন্ত্রস্ত না হয়ে পারি না।
দেশে এখন যে গণতন্ত্রের মহড়া চলছে, তাকে বলা যায় হটানোর গণতন্ত্র। এক পক্ষ আরেক পক্ষকে হটাতে চায়। কেউ পুলিশ ও প্রশাসন দিয়ে। কেউ রাজপথে আন্দোলন করে। আর সেই সুযোগে বোমা ফাটানোর রাজনীতির অনুশীলনও চলছে লালখানে এবং হয়তো অচিরে তা সবখানেই ছড়িয়ে পড়বে।
সোহরাব হাসান: কবি, সাংবাদিক।
sohrab03@dhaka.net