চট্টগ্রামে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

হামলা হলে পাল্টা আক্রমণে যাবে পুলিশ

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মহীউদ্দীন খান আলমগীর বলেছেন, নিরাপত্তা বাহিনী বা পুলিশ বাহিনীর ওপর যেকোনো ধরনের আক্রমণকে স্বাভাবিকভাবে গ্রহণ করা হবে না। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী এখন থেকে পাল্টা আক্রমণ করবে। কাউকে রেহাই দেওয়া হবে না।

পুলিশের ওপর হামলা ও গুলির ঘটনার প্রতিক্রিয়ায় গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে চট্টগ্রাম নগরের এনায়েত বাজার মোড় পরিদর্শনকালে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এসব কথা বলেন। গত মঙ্গলবার সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগে জামায়াতের সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল কাদের মোল্লার ফাঁসির রায় ঘোষণার পর এনায়েত বাজার মোড়ে পুলিশের গাড়িতে অগ্নিসংযোগ ও হামলা চালিয়েছিল জামায়াত-শিবির।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘যারা ধ্বংসাত্মক কাজ করে, তারা সমাজের শত্রু। তাদের দমন করতে সরকারের পক্ষ থেকে আইন অনুযায়ী দৃঢ় পদক্ষেপ নিতে আমরা বদ্ধপরিকর। যারা ধ্বংসাত্মক কাজ করছে, তাদের উসকানি দিয়ে এবং এই কাজে অর্থ দিয়েছে, তাদের কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না। সাতকানিয়ায় পুলিশের ওপর আক্রমণ হয়েছে। পুলিশ সেখানে সর্বোচ্চ ধৈর্যের সঙ্গে কাজ করেছে।’

এর আগে সকালে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী চট্টগ্রামের পশ্চিম পটিয়ায় চট্টগ্রাম কোস্টগার্ডের সদর দপ্তরে এক অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের নানা প্রশ্নের জবাব দেন। যুক্তরাষ্ট্রের বাংলাদেশ কোস্টগার্ডকে ছয়টি মেটাল সার্ক বোট হস্তান্তর উপলক্ষে ওই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ঢাকায় নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত ড্যান ডব্লিউ মজীনা ও কোস্টগার্ডের মহাপরিচালক রিয়ার অ্যাডমিরাল গাজী সারোয়ার হোসেন।

অনুষ্ঠানের সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মহীউদ্দীন খান আলমগীর বলেন, ‘আইন ও সংবিধান লঙ্ঘন করে অন্য কারও দায়িত্ব নেওয়ার এখতিয়ার নেই।’ নির্বাচনের আগেই যুদ্ধাপরাধীদের রায় কার্যকর হবে কি না, জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘রায় কার্যকর করবে নির্বাহী বিভাগ। আদালত শেষ সিদ্ধান্ত দিলে আসামি রাষ্ট্রপতির কাছে দয়াভিক্ষা চাইতে পারবেন। এর সঙ্গে নির্বাচনকে মিলিয়ে ফেলা ঠিক নয়।’